Guidelines BANGLA

সুন্দর আগামীর স্বপ্ন

জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক আলোকচিত্র প্রতিযোগিতা ও প্রদর্শনী

পরিপ্রেক্ষিত
জলবায়ু পরিবর্তন সংকট বর্তমানে মানব সভ্যতার অস্তিত্বের জন্যে সবচেয়ে বড় হুমকি হিসেবে স্বীকৃত। সামাজিক, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক এবং পরিবেশগত বিভিন্ন পরিসরে এর বিরূপ প্রভাব ইতিমধ্যেই দৃশ্যমান হচ্ছে। তাই জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলা করা বিশ্বের সকল দেশের সরকারের কাছে সর্বাপেক্ষা গুরুত্ববহ একটি বিষয় হিসেবে হাজির হয়েছে। বিশেষত বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলোর কাছে, যারা অসমভাবে এই পরিবর্তনের শিকার হচ্ছে। বাংলাদেশ সরকার বর্তমানে ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরামের (সিভিএফ) সভাপ্রধানের দায়িত্ব পালন করছে এবং জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়টিকে সামনে রেখে জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার জলবায়ু সংক্রান্ত লক্ষ্যসমূহ অর্জনের উদ্দেশ্যে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

এই সামগ্রিক পরিপ্রেক্ষিতকে ভিত্তি করেই যুক্তরাজ্য ও ইতালির যৌথ উদ্যোগে এবারের কপ২৬ সম্মেলন এবং সম্মেলনপূর্ব বিভিন্ন অনুষ্ঠান আয়োজিত হতে যাচ্ছে। বিপুল সংখ্যক সংস্থা ও কর্তৃপক্ষ এই উদ্যোগ বাস্তবায়নে সহযোগিতা করছেন। ব্রিটিশ কাউন্সিল, বাংলাদেশস্থ ব্রিটিশ হাইকমিশন ও বাংলাদেশস্থ ইতালি দূতাবাসের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য হচ্ছে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলা সংক্রান্ত আলোচনায় তরুণ সমাজের কণ্ঠস্বরকে সঞ্চালন, উপস্থাপন ও শক্তিশালী করা।

ঐতিহাসিকভাবে তরুণ সমাজের কণ্ঠস্বর আলোচনায় প্রায়শই গৌণ হিসেবে বিবেচিত। সরকার প্রধান ও কর্মকর্তাদের মূল আলোচনায় তাদের চিন্তা ও সমাধানকে পুরোপুরি সামনে না আনা অথবা পাশ কাটিয়ে যাওয়া হতো। যুক্তরাজ্য এবং ইতালির সরকার উভয়েই তরুণ সমাজের কণ্ঠস্বরের এই অভাব পূরণে বদ্ধপরিকর। এই লক্ষ্যে ২০২১ সালের নভেম্বর মাসে অনুষ্ঠিতব্য কপ২৬ গ্লাসগো সম্মেলনকে কেন্দ্র করে আয়োজিত কর্মকাণ্ডসমূহকে প্রাধান্য দেয়ার পাশাপাশি জলবায়ু পরিবর্তনের সমাধান ও কৌশল প্রদানের ক্ষেত্রে যাতে তারা সক্ষমতা অর্জন করতে পারে সেই লক্ষ্যে তরুণ সমাজের দীর্ঘমেয়াদী যুক্ততা, অংশগ্রহণ এবং তাদের দক্ষতা ও পারদর্শিতা বৃদ্ধি নিশ্চিত করতে উভয় দেশের সরকার কাজ করে যাচ্ছে।

আলোকচিত্র প্রতিযোগিতা ও প্রদর্শনী
উল্লেখিত পরিপ্রেক্ষিতকে সূত্র ধরে ব্রিটিশ কাউন্সিল, বাংলাদেশস্থ ব্রিটিশ হাইকমিশন এবং বাংলাদেশস্থ ইতালি দূতাবাস, দৃক পিকচার লাইব্রেরি, পিকচার পিপল ইউকে ও ইউনিভার্দ ইতালির সহযোগিতায় বাংলাদেশী নাগরিকদের জন্য একটি আলোকচিত্র প্রতিযোগিতার ডাক দিচ্ছে এবং একই সাথে একটি প্রদর্শনী আয়োজনের পরিকল্পনা ব্যক্ত করছে। এই উদ্যোগের সামগ্রিক লক্ষ্য হচ্ছে জলবায়ু পরিবর্তনের আঞ্চলিক রূপ ও সমস্যাগুলো সম্পর্কে বাংলাদেশের তরুণ সমাজের সচেতনতা বৃদ্ধি করা। এর ফলে-

  • আঞ্চলিক জীববৈচিত্র্য সম্পর্কে জানা ও যুক্ত হবার পাশাপাশি নিজেদের অঞ্চলে জলবায়ু পরিবর্তনের সমস্যা নির্ধারণ ও সমাধানে তরুণ সমাজ (১৮-৩৫) উদ্বুদ্ধ হবে।
  • বাংলাদেশের জলবায়ু পরিবর্তন সম্পর্কে বাংলাদেশের তরুণ সমাজের কণ্ঠস্বর ও দৃষ্টিভঙ্গি উপস্থাপন করে বিভিন্ন প্রকাশনা তৈরি হবে।
  • বাংলাদেশী তরুণ সমাজের চিন্তা ও তাদের দ্বারা চিহ্নিত জলবায়ু বিষয়ক প্রধান সমস্যাগুলো জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের ঊর্ধ্বতন নেতৃবৃন্দের নিকট পৌঁছে দেয়ার সুযোগ তৈরি হবে।

পরিকল্পনার অংশ হিসেবে ২০২১ সালের নভেম্বর মাসে অনুষ্ঠিতব্য কপ২৬ গ্লাসগো সম্মেলনের সময় ঢাকায় একটি প্রদর্শনী আয়োজিত হবে। বৃহত্তর প্রসারের লক্ষ্যে একটি ভার্চুয়াল সংস্করণের পরিকল্পনা করা হয়েছে। উদ্যোগের অংশ হিসেবে প্রদর্শনীটি ইতালি ও গ্লাসগোতেও প্রদর্শনের সম্ভাবনা রয়েছে।

প্রদর্শনীতে শ্রেষ্ঠ পুরস্কার বিজয়ী এবং প্রত্যেক বিভাগ থেকে বিজয়ী দুইটি ছবিসহ নির্বাচিত সর্বমোট ৩০টি ছবি প্রদর্শিত হবে। আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন বিচারকমণ্ডলীর সদস্যদের একটি প্যানেল ছবিগুলো নির্বাচন করবেন। জমাদানের শেষ তারিখের আগে স্মার্টফোনে ছবি তোলা বিষয়ক একটি ওয়েবিনার আয়োজিত হবে। কোভিড-১৯ সম্পর্কিত বিধি-নিষেধ সাপেক্ষে বিজয়ীদের ঢাকায় আয়োজিত প্রদর্শনীতে আমন্ত্রণ জানানো হবে।

নীতিমালা
কারা অংশগ্রহণ করতে পারবে?
বাংলাদেশে বসবাসরত ১৮ থেকে ৩৫ বছর বয়সী যেকোন বাংলাদেশী নাগরিকের জন্য প্রতিযোগিতাটি উন্মুক্ত।

প্রতিপাদ্য
আলোকচিত্র প্রতিযোগিতার প্রতিপাদ্য হচ্ছে সুন্দর আগামীর স্বপ্ন

বিচারকার্যে ছবিগুলোর বার্তা, শিল্পগুণ এবং কৌশলগত উৎকর্ষ বিবেচনা করা হবে। বিচারকমণ্ডলী সবসময়ই নতুনত্ব এবং মুগ্ধতার খোঁজ করেন। তাই মৌলিক ও বিরল দৃষ্টিভঙ্গি উপস্থাপনের চেষ্টা করুন। তবে তার অর্থ এই নয় যে দৈনন্দিন ঘটনাবলি অগুরুত্বপূর্ণ। বরং আপনার বার্তাটি পৌঁছে দেয়ার জন্য নতুন ও সৃজনশীল উপায় অবলম্বন করুন।

নিম্নোক্ত বিভাগসমূহের অধীনে ছবি জমা দেওয়া যাবেঃ

১। অনিন্দ্য সুন্দর পৃথিবী
নগরমুখী উন্নয়ন স্থানীয় জীব প্রজাতির একটি বৃহৎ অংশকে নির্মূল করে ফেলে এবং বিভিন্ন প্রজাতির আবাসস্থল ধ্বংস করে তাদের বিলুপ্তির দিকে ঠেলে দেয়। জীববৈচিত্র্য রক্ষা করে উন্নয়ন সাধিত হয়েছে এমন উদাহরণের খোঁজ করুন। জৈব কৃষি, পানির সদ্ব্যবহার অথবা ছাদ বাগান আপনার চারপাশে ছড়িয়ে থাকা উদাহরণগুলোর মধ্যে অন্যতম। গ্রামাঞ্চলে খুঁজলে আপনি আরও অনেক উদাহরণের ভেতর বীজ ব্যাংক এবং মিশ্র চাষাবাদ দেখতে পাবেন। এমন ছবি খুঁজে আনুন যেটি দেখে দর্শকের মনে যেন ‘আহ’ বেজে ওঠে আর আমাদের এই গ্রহ রক্ষার্থে কাজ করতে যেন তিনি উদ্বুদ্ধ হয়ে উঠেন।

২। সংকটাপন্ন পৃথিবী
উর্বর জমি নিষ্ফলা হয়ে যাওয়া, বন উজাড়, নদীর গতিপথ পরিবর্তন অথবা মরে যাওয়া জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবসমূহ যথার্থই প্রকাশ করতে পারে। তবে এক্ষেত্রে সতর্ক থাকা প্রয়োজন কারণ পরিবেশগত সকল বিপর্যয় জলবায়ু পরিবর্তনের সাথে সম্পর্কিত নাও হতে পারে। জীবাশ্ম জ্বালানিভিত্তিক প্রকল্পের বিরোধিতা এবং পালতোলা নৌকা ও রিক্সার মোটরচালিত যানে রূপান্তর সবই আধুনিকায়নের প্রভাবের আঞ্চলিক উদাহরণ। প্রত্যক্ষগোচর প্রতীক ব্যবহারের বদলে গভীর সংযোগ অন্বেষণ করুন। এই প্রতিযোগিতাটি শুধুমাত্র অসাধারণ ছবি সম্পর্কিতই নয় বরং অসাধারণ অন্তর্দৃষ্টিমূলকও বটে। শুধু সমস্যার দিকেই না তাকিয়ে সমাধানও খুঁজে বের করার চেষ্টা করুন। চিন্তা করুন কীভাবে আমাদের অভ্যাস, মূল্যবোধ এবং নীতিসমূহ এই বিপর্যয়ের জন্য দায়ী আবার কীভাবে সামান্য পরিবর্তনের ফলে এগুলোই হতে পারে আমাদের মুক্তির পথ। 

৩। পৃথিবীর ভরসা
এই গ্রহের রক্ষক হিসেবে আমরা ব্যর্থ হয়েছি কিন্তু আমাদের ভবিষ্যতের নির্মাতা হিসেবেও কি আমরা ব্যর্থ? এই বিপর্যয় রোধকল্পে আমাদের কী ভূমিকা পালন করতে হবে? আমাদের ভেতরের গ্রেটা থানবার্গরা কোথায়? আমাদের বিশ্বকে বাঁচাতে তরুণ সমাজের কী ভূমিকা পালন করতে হবে? মানব অস্তিত্বেরই অবিচ্ছেদ্য অংশ  আন্দোলন, উদ্ভাবন, সৃজনশীলতা ও অধ্যবসায়ের খোঁজ করুন। দীর্ঘমেয়াদী পরিবর্তনের জন্য প্রয়োজনীয় প্রতিশ্রুতিশীল প্রযুক্তি, বৈশ্বিক মতবাদের পরিবর্তনসমূহ ও সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জনপরিসরে সকলের যৌথ প্রচেষ্টার সন্ধান করুন ।

পুরষ্কার
শ্রেষ্ঠ পুরষ্কার বিজয়ীঃ ১,০০,০০০ টাকা
বিভাগভিত্তিক বিজয়ীঃ প্রত্যেকে ৫০,০০০ টাকা, ৩জন
বিভাগভিত্তিক রানার্স-আপঃ প্রত্যেকে ২০,০০০ টাকা, ৩জন

প্রদর্শনীর জন্যে নির্বাচিত ছবিগুলোকে সনদপত্র দেওয়া হবে।

বিচারকমণ্ডলী
ব্রুনো ডি’আমিচিস, ইতালি
নিক ড্যাঞ্জিগার, যুক্তরাজ্য
শহিদুল আলম, বাংলাদেশ

জমাদানের নিয়ম

সকল প্রতিযোগীকে প্রতিযোগিতার জন্য নির্ধারিত   https://submissiondrik.com/ – এই ঠিকানায় আলোকচিত্র জমা দিতে হবে।

জমাদানের শেষ তারিখ
২১ আগস্ট ২০২১

একজন প্রতিযোগী সর্বোচ্চ পাঁচটি আলোকচিত্র জমা দিতে পারবেন। সবগুলো ছবি ইংরেজিতে লেখা ক্যাপশন সম্বলিত হতে হবে। ছবিগুলো রঙ্গিন অথবা সাদাকালো হতে হবে এবং jpeg ফরম্যাটে হাই রেজ্যুলুশনের (কমপক্ষে ৪০০০ পিক্সেল) ছবি জমা দিতে হবে। জমাদানকৃত ছবি অবশ্যই মৌলিক হতে হবে। ডিজিটাল মাধ্যমে হেরফের করা আলোকচিত্র (কোন অংশ বাদ দেয়া, যুক্ত কিংবা পরিবর্তন করা) গ্রহণ করা হবে না। নগণ্য পরিমাণে কন্ট্রাস্ট, উজ্জ্বলতা ঠিক করা অথবা ফিল্টার ব্যবহার করা ছবি গ্রহণযোগ্য, যদি এর ফলে ছবির বৃহৎ কোনো পরিবর্তন না ঘটে।

ঘোষণা

ছবির স্বত্বাধিকার আলোকচিত্রী কর্তৃক সংরক্ষিত। প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের মাধ্যমে প্রতিযোগী এই মর্মে ঘোষণা, ব্যক্ত ও নিশ্চিত করছে যে জমাদানকৃত আলোকচিত্রটি শুধুমাত্র প্রতিযোগীর দ্বারা নির্মিত একটি মৌলিক কাজ ও ছবিটি কোন ব্যক্তি কিংবা অস্তিত্বের স্বত্বাধিকার, ট্রেডমার্ক, গোপনীয়তার অধিকার, প্রচার অথবা মেধাস্বত্ব অধিকার লঙ্ঘন করে না এবং অন্য কোন পক্ষের ছবিটিতে কোন প্রকার আইনী অধিকার, দাবি কিংবা স্বত্ব নেই। মিথ্যা তথ্য প্রদান করলে অংশগ্রহণ বাতিল হয়ে যাবে। বিচারকমণ্ডলী চাইলে আলোকচিত্রী কর্তৃক নির্বাচিত বিভাগ পরিবর্তন করতে পারেন। নির্বাচিত কাজগুলো ব্রিটিশ কাউন্সিলের নেতৃত্বাধীন জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক উদ্যোগে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে অনলাইন, প্রিন্ট কিংবা ইলেকট্রনিক মাধ্যমে ব্যবহৃত হতে পারে। প্রতিযোগিতায় প্রবেশের বর্ণিত নীতিমালা বাধ্যতামূলক, আয়োজকেরা চাইলে স্বীয় বিবেচনা অনুযায়ী কোনো প্রতিযোগীকে প্রত্যাখান অথবা বাদ দিতে পারবেন।

যোগাযোগ –
ইমেইল: submissions@drik.net
ফোন: +৮৮০১৭৮৭৬৭৯৭২৪

Download the full guidelines